যৌথ ক্ষেত্রের বৈশিষ্ট্য (Features of Joint Sector)

যৌথ ক্ষেত্র [Joint Sector]

 

Features of Joint Sector


সংজ্ঞা (Definition) : সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান যখন যৌথভাবে অর্থনৈতিক ও ব্যাবসায়িক উদ্যোগে মূলধন সরবরাহ করে এবং পরিচালনায় অংশগ্রহণ করে তখন তাকে যৌথ উদ্যোগ বলে। আর.এস. ভাট (R. S. Bhatt) -এর মতে, যৌথ ক্ষেত্র হল এমন এক শিল্প সংগঠন যেখানে সরকার ও সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলির আর্থিক স্বচ্ছলতার সঙ্গে বেসরকারি ক্ষেত্রের অভিজ্ঞ পরিচালনা ও দক্ষতার সুষ্ঠু সমন্বয় ঘটে। সহজ অর্থে যৌথ ক্ষেত্র হল সরকারি ও বেসরকারি সমন্বয়ে গঠিত একধরনের অংশীদারি কারবার। সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রের যৌথ মালিকানায় অর্থ, প্রযুক্তি ও ব্যবস্থাপনার মেলবন্ধন ঘটে। উদাহরণ : বেঙ্গল অম্বুজা, বেঙ্গল শেল্টার, হলদিয়া পেট্রোকেমিক্যালস্, বেঙ্গল পিয়ারলেস ও মারুতি উদ্যোগ লিমিটেড।


যৌথ ক্ষেত্রের বৈশিষ্ট্য (Features of Joint Sector)


● সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রের মিলন (Public and Private Partnership) : সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রের যৌথ মূলধন ও পরিচালনার মেলবন্ধন ঘটে। সরকারি 25, দেশীয় বেসরকারি 20, বৈদেশিক সংস্থা 20, অন্যান্য 35


● অনুমতি (Permission) : যৌথ ক্ষেত্র স্থাপনে কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমতি প্রয়োজন।


● পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ (Management and Control) : কারবারে উচ্চমানের বেসরকারি পরিচালনার সঙ্গে সরকারি ক্ষেত্রের নিয়ন্ত্রণ কার্যকর হয়।


● মুনাফা ও জনকল্যাণ (Profit and Public Welfare) : মুনাফা ও জনকল্যাণের সমন্বয় ঘটানো হয়।


● সামাজিক ও অর্থনৈতিক ভারসাম্য (Socio-economic Balance) : সামাজিক নিয়ন্ত্রণ ও অর্থনৈতিক ভারসাম্য রক্ষার ফলে মুনাফার নিয়ন্ত্রণসহ জনকল্যাণ সংঘটিত করা সম্ভবপর হয়।

 

যৌথ ক্ষেত্রের সুবিধা (Advantages of Joint Sector)


● ব্যবস্থাপনা ও প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার (Optimum Utilisation of Managerial and Tech nical Skill) : বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা ও প্রযুক্তিগত উৎকর্ষতার সঙ্গে সরকারি মূলধনের ব্যবহারের ফলে ব্যবস্থাপনা ও প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার সম্ভব।


● সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রের সহাবস্থান (Harmonisation of Public Sector and Private Sector) : সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রের বন্ধুত্বপূর্ণ সহাবস্থান সমৃদ্ধির সূচনা করে।


● মিশ্র উদ্যোগ (Mixed Entrepreneurship) : মিশ্র উদ্যোগের ফলে লাভক্ষতি উভয়কেই বহন করতে হয়। কাউকেই অসময়ে সম্পূর্ণ ক্ষতি বহন করতে হয় না।


● জনসাধারণের বিনিয়োগের সর্বোচ্চ ব্যবহার (Maximum Utilisation of Public Investment): জনসাধারণের বিনিয়োগের সর্বোচ্চ ব্যবহারের মধ্যে দিয়ে সংস্থা সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে সমর্থ হয়।


যৌথ ক্ষেত্রের অসুবিধা (Disadvantages of Joint Sector)


● ঘোষিত নীতির পরিবর্তন (Departure from Establish Principle) : সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে গঠিত যৌথক্ষেত্র পরিচালিত হবে বেসরকারি উদ্যোগে। বেসরকারি পরিচালনায় সরকারি নিয়ন্ত্রণ হ্রাস করে বেসরকারি ক্ষেত্র যৌথক্ষেত্রকে গ্রাস করবে। মারুতির ক্ষেত্রে জাপানি অংশীদার সুজুকি নিয়ন্ত্রণ কায়েম করেছে।


● যৌথ ক্ষেত্রের সীমাবদ্ধতা (Limitation of Joint Sector) : নতুন শিল্পনীতি অনুসারে যে সমস্ত ক্ষেত্রে বেসরকারি শিল্প গঠনের অনুমতি নেই সেই ক্ষেত্রে সরকারি উদ্যোগের সঙ্গে বেসরকারি উদ্যোগ যুক্ত হতে পারে না।


● অবৈধ বিবাহ (Illegal Marriage) : যৌথ সংস্থায় সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রের মিলনকে অবৈধ বিবাহ বলে অভিহিত করা হয়। সরকারি ক্ষেত্র কল্যাণকর রাষ্ট্রের ভূমিকা পালন করতে চায়। অন্যদিকে, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান মুনাফা করতে চায়। এর ফলে এই দুই সংস্থার মধ্যে সংঘর্ষ অনিবার্যভাবে দেখা দেয়।


● বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে চাপ (Pressure from Private Sector) : শক্তিশালী ব্যক্তিমালিকানা বা বেসরকারি ক্ষেত্র সরকারি ক্ষেত্রের ওপর অতিরিক্ত মুনাফা লাভের আশায় চাপ সৃষ্টি করে। বেঙ্গল অম্বুজা, বেঙ্গল শেল্টার, বেঙ্গল পিয়ারলেসের মুনাফা কোনো বেসরকারি ক্ষেত্র থেকে কম নয়।