অংশীদারি চুক্তিপত্রের প্রধান ধারাগুলি Important Clauses of Partnership Deed

● অংশীদারি চুক্তিপত্র (Partnership Deed)

অংশীদারি কারবার চালু অবস্থায় অংশীদারি চুক্তিপত্র জীবন্ত দলিল। অংশীদারি চুক্তির শর্তগুলি এমনভাবে প্রস্তুত করা হয় যাতে ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা, অংশীদারদের মধ্যে সম্পর্ক, বিবাদ নিষ্পত্তির মতো বিষয়গুলি সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট নির্দেশ থাকে। তা না হলে ভবিষ্যতে জটিলতা বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকে। অংশীদারি কারবার অংশীদারগণ নিজেদের মধ্যে চুক্তিবদ্ধ হয়ে যে দলিল তৈরি করে তাকে অংশীদারি চুক্তিপত্র বলে। অধ্যাপক এল. এইচ. হ্যানে (L. H. Haney)-এর মতে, একই পথের পথিক হিসেবে অংশীদারি কারবার এমন দৃষ্টান্ত যেখানে দ্রব্য সামগ্রী সকলের অধিকারে রেখে বসবাস করা বা চলা খুবই কঠিন। কাজেই তাঁরা পথ চলতে চলতে পরস্পরের থেকে পৃথক হয়ে পড়েন এবং কোনো ছোটোখাটো বিষয়ে
বিবাদমান হন।

 

Important Clauses of Partnership Deed



● অংশীদারি চুক্তিপত্রের প্রধান ধারাগুলি (Important Clauses of Partnership Deed)

1. প্রতিষ্ঠানের নাম ও ঠিকানা;
2. কোন্ ক্ষেত্রের কারবার;
3. অংশীদারদের নাম, ঠিকানা ও পেশা;
4. অংশীদারদের মেয়াদ (যদি প্রয়োজন হয়);
5. মূলধনের পরিমাণ, সংস্থান ও অংশীদারদের অংশ;
6. লাভক্ষতি বণ্টনের হার;
7. মূলধনের ওপর দেয় সুদের হার;
৪. অংশীদারদের পারিশ্রমিক;
9. ব্যবস্থাপনা;
10. হিসাবরক্ষা ও হিসাবপরীক্ষা;
11. মূলধনের ওপর সুদ;
12. অগ্রিম অর্থ প্রদানের নিয়ম;
13. অংশীদারদের মৃত্যু বা অবসরগ্রহণ;
14. অংশীদারি কারবারের সুনামের মূল্যায়ন;
15. অংশীদারি প্রতিষ্ঠানের বিলোপসাধন পদ্ধতি;

অংশীদারি চুক্তিপত্র প্রত্যেক অংশীদার কর্তৃক স্বাক্ষরিত হবে। অংশীদারি চুক্তিপত্র নিবন্ধিত হতেও পারে, নাও হতে পারে। ভারতীয় অংশীদারি আইন, 1932 অনুসারে অংশীদারি প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন বাধ্যতামূলক নয়। 

 

● অংশীদারি চুক্তিপত্রে উল্লেখ না থাকলে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি কীভাবে বিবেচনা করবে? (How the Following Matters be Resolved, if not Mentioned in the Partnership Deed ?)

ভারতীয় অংশীদারি আইন, 1932-এর 13 ধারা অনুসারে অংশীদারি চুক্তিপত্রে উল্লেখ না থাকলে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি নিষ্পত্তির উপায় :-

1. অংশীদারগণের মধ্যে লাভলোকসান সমানভাবে বণ্টিত হবে।
2. অংশীদারগণকে নিজস্ব মূলধনের ওপর কোনো সুদ প্রদান করা হবে না।
3. অংশীদারগণ প্রদত্ত ঋণের ওপর বার্ষিক 6 শতাংশ হারে সুদ পাবেন।
4. অংশীদারগণকে কোনো বেতন প্রদান করা হবে না।
5. অংশীদারগণের তোলা টাকার ওপর কোনো সুদ দিতে হবে না।


অংশীদারি প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন পদ্ধতি [ Procedure of Registration of Partnership Business ]

অংশীদারি কারবারের নিবন্ধন বাধ্যতামূলক নয়। অংশীদারি কারবার নিবন্ধিত হলে আইনগত সুবিধা পাওয়ার অধিকারী হয়। রাজ্য সরকার কর্তৃক নিযুক্ত অংশীদারি প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধকের (Registrar of Firms) কাছে নির্ধারিত আবেদনপত্র পূরণ করে নির্ধারিত ফি/দক্ষিণা সমেত আবেদনপত্র জমা দিতে হয়। ভারতীয় অংশীদারি আইনের 65 থেকে 71 ধারায় বর্ণিত নির্দেশাবলি অনুসরণ করে নিবন্ধন করা হয়। নির্ধারিত আবেদনপত্রে নিম্নলিখিত বিবরণসহ আবেদন করতে হয়-

1. অংশীদারি প্রতিষ্ঠানের নাম ;
2. অংশীদারি প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যালয়ের ঠিকানা ;
3. অংশীদারি কারবারের অন্যান্য ঠিকানা ;
4. প্রত্যেক অংশীদারদের সঙ্গে যোগাযোগের ঠিকানা ;
5. প্রত্যেক অংশীদারদের নাম, স্থায়ী ঠিকানা ও পেশা ;
6. অংশীদারি প্রতিষ্ঠানের মেয়াদ ও কার্যকাল।

নিবন্ধক বিবৃতি সম্পর্কে সন্তুষ্ট হলে অংশীদারি কারবারের নাম নিবন্ধন বই (Registered Book)- এ লিপিবদ্ধ করেন। লিপিবদ্ধকরণের সঙ্গে সঙ্গে নিবন্ধন সম্পূর্ণ হয়। নথিভুক্ত অংশীদারি প্রতিষ্ঠান আয়করের সুবিধা ভোগ করেন।


Important Clauses of Partnership Deed

● নিবন্ধনের সুবিধা (Benefits or Registration of Partnership of Business)

1.পাওনা আদায়ের মামলা (Legal Steps to Recover Debts) : নথিভুক্ত অংশীদারি কারবার পাওনা আদায়ের জন্য মামলা করতে পারে।

2. অধিকার আদায়ের মামলা (Legal Steps to Establish Rights) : নথিভুক্ত অংশীদারি কারবার অন্য অংশীদার বা তৃতীয়পক্ষের বিরুদ্ধে অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য মামলা করতে পারেন।

3. নতুন অংশীদারের অধিকার (Right of New Partner) : নথিভুক্ত অংশীদারি কারবারের নতুন অংশীদার অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য অংশীদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে।

4. বিবাদ মীমাংসা (Resolve Dispute) : নথিভুক্ত অংশীদারি কারবারের অংশীদারদের মধ্যে বিরোধ সহজেই মিটিয়ে ফেলা যায়।

5. প্রতারণা প্রতিরোধ (Resist Fraud) : নিবন্ধিত অংশীদারি প্রতিষ্ঠান প্রতারণা প্রতিরোধে সক্রিয়ভাবে ভূমিকা পালন করতে পারে।

 

● অংশীদারি কারবার নিবন্ধিত না হওয়ার পরিণাম (Effects of Non-registration of Partnership Firm)

ভারতীয় অংশীদারি আইন, 1932-এর 6 ধারা অনুসারে ভারতে অংশীদারি কারবারের নিবন্ধন বাধ্যতামূলক না হলেও অনিবন্ধিত অংশীদারি কারবার ও তাঁর অংশীদারদের কিছু অসুবিধা ভোগ করতে হয়।

1. পাওনা আদায়ের মামলা (Legal Steps against Debt) : অংশীদারি কারবার নিবন্ধিত না হলে অংশীদারি কারবার বা অংশীদার অন্য কারও বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারে না। পাওনা আদায়ের মামলাও করতে পারে না।

2. তৃতীয় পক্ষের বিরুদ্ধে মামলা (Legal Steps against Third Party) : অংশীদারি কারবার চুক্তিজাত কোনো অধিকার বলবৎ করার জন্য তৃতীয় পক্ষের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে না। বাদীপক্ষের কাছে বিবাদীপক্ষ হিসেবে প্রদেয় টাকা প্রদানে বাধ্য থাকবে কিন্তু বাদীপক্ষ হিসেবে বিবাদী পক্ষের কাছ থেকে প্রাপ্য টাকা উদ্ধারে সমর্থ হবে না।