কারবারের উদ্দেশ্যগত বৈশিষ্ট্য Objective Based Features

 উদ্দেশ্যগত বৈশিষ্ট্য (Objective Based Features)

Objective Based Features

 

● সেবার মনোভাব (Service Motive) : অধ্যাপক আরউইক (Prof. Urwick)-এর মতে, জীবন-ধারণের জন্য আহারের উদ্দেশ্য যতটুকু, কারবারের জন্য মুনাফার উদ্দেশ্য তার অধিক হতে পারে (Earning of profits cannot be the objective of a business anymore than eating is the objective of living.) 


● উদ্বৃত্ত সৃষ্টি বা মুনাফা অর্জন (Creation of Surplus or Profit Earning): কারবারের আয় যখন ব্যয়কে অতিক্রম করে তখন উদ্বৃত্ত সৃষ্টি হয়। উদ্বৃত্ত সৃষ্টি করা কারবারের প্রধান কাজ, যা বেসরকারি ক্ষেত্রে মুনাফা বলে পরিচিত এবং সরকারি ক্ষেত্রে উদ্বৃত্ত বলে সমাদৃত।


● জনকল্যাণমূলক কাজকর্ম (Public Welfare Activities) : বর্তমানে কারবারকে সামাজিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গণ্য করা হয়। কারবারকে জনকল্যাণমূলক কাজকর্মে অংশগ্রহণ করতে হয়। জামশেদপুরে টাটা স্টিল (Tata Steel Company or TISCO) বনসৃজনে অংশগ্রহণ এবং 1978 খ্রিস্টাব্দ থেকে পরিবেশ নিরীক্ষা (Environmental Audit) করে চলেছে।

● পারস্পরিক সুবিধা (Mutual Advantage) : পারস্পরিক সুবিধা প্রদানের মধ্যে দিয়ে কারবারের শ্রীবৃদ্ধি ঘটে। কারবার সমাজ থেকে কী কী পেল এবং সমাজ কারবার থেকে কী কী পেল—পারস্পরিক সুবিধা বিবেচনা করা হয়। এর ফলে সমাজ ও কারবার উভয়ই উপকৃত হয়।


● উদ্যোক্তা ও দক্ষ ব্যবস্থাপকের বিশেষ গুণাবলি (Special Qualities of Entreprenure and Skilled Manager) : উদ্যোক্তা ও কুশলী ব্যবস্থাপকের চারটি বিশেষ গুণ থাকা প্রয়োজন। এই চারটি গুণ হল—উদ্যোক্তার অফুরন্ত প্রাণশক্তি (Energy), উদ্যম সঞ্চারিত করতে সমর্থ (Energise), সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে সমর্থ (Edge) এবং সিদ্ধান্ত কার্যকর (Execute) করার ক্ষমতা থাকবে।


কারবারের ক্রিয়াগত বৈশিষ্ট্য (Function Based Features)


● পুনঃপুন ক্রয়-বিক্রয় (Recurring Purchase-Sale) :
পুনঃপুন ক্রয়-বিক্রয় হল কারবার। কারবার কোনো আকস্মিক ঘটনা নয়। উৎপাদিত পণ্যসামগ্রী বা সেবা বারংবার ক্রয়-বিক্রয় কারবারি কার্যকলাপ রূপে বিবেচিত হয়।


● উপযোগ সৃষ্টি (Creation of Utility) : এ. কে. মেয়ার্স (A.K. Mayers)-এর মতে, উপযোগ বলতে দ্রব্যের অভাব মোচনের ক্ষমতা বোঝায়। উপযোগ সৃষ্টি কারবারের একটি মূলগত বৈশিষ্ট্য।


● মালিকানা হস্তান্তর (Transfer of Ownership) : কারবারের মাধ্যমে পণ্যের মালিকানা বিক্রেতার কাছ থেকে ক্রেতার কাছে হস্তান্তরিত হয় এবং অর্থ ক্রেতার কাছ থেকে বিক্রেতার কাছে হস্তান্তরিত হয়।


● গতিশীলতা (Dynamism) :
আধুনিক সমাজ গতিশীল এবং সতত পরিবর্তনশীল। আর্থসামাজিক অবস্থার পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে ক্রেতার ক্রয়ক্ষমতা, রুচি, পছন্দ ও চাহিদার পরিবর্তন হয়। কারবারকেও এই পরিবর্তনশীলতার সঙ্গে সঙ্গে নিজেকে পরিবর্তন করতে হয়। কারবারের ধারণা একটি গতিশীল ধারণা।


● পৃথক সত্তা (Separate Entity) : কারবারের সৃষ্টিকর্তা হলেন মালিক, অর্থাৎ কারবার হল মালিক কর্তৃক সৃষ্ট একটি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু মালিক ও কারবারের অর্থ এক নয়। কারবারের নিজস্ব একটা নাম থাকে এবং একটি পৃথক সত্তা থাকে। কারবারের সব কাজ কারবারি প্রতিষ্ঠানের নামেই সম্পাদন করা হয়। কারবারে মালিক যতটা পরিমাণ মূলধন বিনিয়োগ করেন তাকে বলা হয় মালিকের কাছে কারবারের দায়। সুতরাং, কারবারকে আলাদা সত্তাবিশিষ্ট একটি সামাজিক প্রতিষ্ঠান বলা যেতে পারে।

 

কারবারের গুরুত্ব ( Importance of Business)


কারবার একটি সামাজিক প্রতিষ্ঠান। সমাজ বিবর্তনের মধ্যে দিয়ে কারবারের সৃষ্টি ও বিবর্তন ঘটেছে। সমাজের মানুষের অভাব পূরণের জন্য কারবার স্থাপিত এবং সমাজে বসবাসকারী মানুষ কারবারের সঙ্গে যুক্ত থাকে। কারবার সমাজ ও অর্থনীতির উন্নতি ঘটায় এবং কারবারেরও উন্নতি ঘটে। কিন্ডেল বার্জার ও হেরিক (Kindle Berger and Herrick)-এর মতে, সুবিধাভোগী অল্প সংখ্যক লোকের পরিবর্তে কর্মক্ষম বৃহত্তর জনগণের মধ্যে বণ্টনের উদ্দেশ্যে অর্থনীতির সাংগঠনিক পরিবর্তন এবং ব্যক্তিগত উন্নতিকল্পে অর্থনীতির গতি-প্রকৃতি সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে গরিষ্ঠসংখ্যক লোকের বেশি পরিমাণে অংশগ্রহণ। উন্নয়নে গুরুত্বের দিক থেকে বিচার করলে কারবারের দুটি দিক লক্ষ করা যায়, যথা – 1. অর্থনৈতিক কারবারের গুরুত্ব ও 2. সামাজিক উন্নয়নে কারবারের গুরুত্ব।